1. admin@muktijoddhatv.xyz : admin :
  2. mainadmin@muktijoddhatvonline.com : mainadmin :
মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১১:২৭ অপরাহ্ন

মারধরসহ ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ দুমকিতে ওসিসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা!

মোঃ মহিউদ্দিন সুমন, পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা টেলিভিশন
  • Update Time : বুধবার, ২২ মার্চ, ২০২৩
  • ৩৩৬ Time View

মারধরসহ ঘুষ গ্রহণের অভিযোগ
দুমকিতে ওসিসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা!

মোঃ মহিউদ্দিন সুমন,
পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধি:

পটুয়াখালীর দুমকিতে ব্লাক মেইল, নির্যাতন, চাঁদা গ্রহণসহ একাধিক অভিযোগ এনে থানা অফিসার ইনচার্জ মো আব্দুস সালাম ও ২ জন এসআইসহ ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী এক যুবক।
গত ১৪ মার্চ পটুয়াখালী বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলাটি দায়ের করা হয়। যার মামলা নং ৩৮৭।
এজাহার সুত্রে জানা যায়, বাউফল উপজেলার রাজনগর এলাকার সুমন উদ্দিন’র ছেলে মো: জাকির হোসেন’র খালাতো ভাই মো: সাদমান সাকিবের নামে উপজেলার আঙ্গারিয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা সৈয়দ ফরহাদ হোসেনের স্ত্রী হোসনেআরা বেগম ও মেয়ে রিজোয়ানা হিমেল, শ্রীরামপুর ইউনিয়নের তাহের আলী রুমাসহ একটি সংবদ্ধ চক্র মিলে উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নে মৃত আলী শরীফের মেয়ে খাদিজা শিমুকে দিয়ে ভূয়া কাবিননামা করে পটুয়াখালী কোর্টে একটি যৌতুক মামলা দায়ের করেন। ঘটনার বিপরীতে পুলিশ সুপার বরাবর সাদমান সাকিব মিথ্যা মামলার করায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন। বিষয়টি পুলিশ সুপার মহোদয় দুমকি থানাকে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে তদন্ত কর্মকর্তা এসআই দেলোয়ার হোসেন ফোন করে উভয় পক্ষদ্বয়কে থানা আসতে বলেন। গত (২৮ ফেব্রুয়ারী) মঙ্গলবার রাতে বাদীপক্ষ থানায় আসলে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে বিবাদী
গন বাদী সাদমান সাকিব ও সাক্ষী জাকির হোসেনকে দেখেই সবার সামনে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করেন। পরবর্তীতে পুলিশ উল্টো সাদমান সাকিব ও জাকির হোসেনকে আটক করেন এবং এসআই সাকায়েত হোসেন বিবাদীের পক্ষ নিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন এবং বিবাদীদের নারী নির্যাতন মামলা করতে নির্দেশ দেন। ওসি আব্দুস সালাম তাদের মোবাইল ফোন কেড়ে নেন। পাশাপাশি ওসি আব্দুস সালাম খাদিজা শিমুকে সাদমান সাকিবের পাসে বসিয়ে ছবি তোলার চেষ্টা করেন এবং ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবী করেন। একপর্যায়ে এসআই সাকায়েত ও এসআই দেলোয়ার হোসেন আটক সাদমান সাকিব ও জাকিরের পরিবার থেকে ৩৫ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে সাদা কাগজ মুসলেকা নেয় এবং দুজনকে মামলার ভয়ভীতি দেখিয়ে শিখানো কথা দিয়ে ভিডিও ধারণ করেন। একই সাথে ওসি আব্দুস সালাম কেড়ে নয়া মোবাইল ফোন কোন জব্দ তালিকা না দেখিয়ে রেখে তাদেরকে ছেড়ে দেন। পুলিশ সুপার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়ে কোন প্রতিকার না পয়ে উল্টো পুলিশ কর্তৃক নির্যাতনের শিকার হয়ে মো: জাকির হোসেন থানা অফিসার ইনচার্জ মো: আব্দুস সালাম, এসআই দেলোয়ার, এসআই সাকায়েত হোসেনসহ ঘটনায় জড়িত ১০ জনের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা দায়ের করেন।
এবিষয়ে অভিযুক্ত ওসি আব্দুস সালাম বলেন, মামলা হয়েছে আদালতে সত্যি মিথ্যা যাচাই-বাছাই হবে এতে আমার কোন মতামত নেই।
পটুয়াখালী পুলিশ সুপার মো: সাইদুল ইসলাম বলেন,
মামলার বিষয়ে আমি অবহিত আছি। যেহেতু মামলাটি তদন্তাধীন আছে আদালতই সত্য মিথ্যা যাচাই করবেন।
#

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024 Coder Boss
Design & Develop BY Coder Boss