1. admin@muktijoddhatv.xyz : admin :
  2. mainadmin@muktijoddhatvonline.com : mainadmin :
শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ০৭:১১ পূর্বাহ্ন

আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার (অব:)আব্দুর রবের ১৫তম মৃত্যু বার্ষিকী।

জাহিদ হোসেন,স্টাফ রিপোর্টার, মুক্তিযোদ্ধা টেলিভিশন
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৩ মে, ২০২৩
  • ৬৫ Time View

আজ বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার (অব:)আব্দুর রবের ১৫তম মৃত্যু বার্ষিকী।

জাহিদ হোসেন স্টাফ রিপোর্টার খুলনা।

মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণকারী সুবেদার (অব:)আব্দুর রব পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীতে চাকরি করিতেন। চাকরির খবর পাওয়া মাত্র পশ্চিম পাকিস্তানিতে তিনি চলে যান। ১৯৬৫ সালে ভারত ও পাকিস্তান যুদ্ধে তিনি অংশগ্রহণ করেন এবং যুদ্ধে তিনি একটি সম্মানিত পদক পেয়েছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রব সাহেব এর বড় ছেলে নিখোঁজ প্রায় ৩১ বছর যাবৎ। তারপর রর সাহেবের বড় মেয়েকে বাংলাদেশের মাটিতে পাঠিয়ে দেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা সুবেদার (অব:) আব্দুর রব ১৯৭১ সালে তিনি দেশের অবস্থা বুঝে চলে আসেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৭ই মার্চের ভাষণের পর চাঁদপুরে গণ্যমান্য আওয়ামী লীগ নেতাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেন। ১৯৭১ সালে ২৬ শে মার্চ বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতা ঘোষণার পরপরই চাঁদপুরের আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দগন আব্দুর রব সাহেবকে চাঁদপুরে আসতে বলেন। তারপর থেকে এই সাহসী মহান ব্যক্তি শুরু করেন বর্তমান সরকারি মহিলা কলেজ, হাসান আলী সরকারি স্কুলে সাহসী মায়ের সন্তানদের নিয়ে দেশকে শত্রুর হাত থেকে রক্ষা করার জন্য ট্রেনিং দিতে শুরু করেন। যারা আজ জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তান তারা বীর মুক্তিযোদ্ধা নামে বিশ্বে সুপরিচিত। তিনি তারপর আব্দুর রব নামে একটি বাহিনী গড়ে তোলেন। এই বীর মুক্তিযোদ্ধা চাঁদপুর জেলা সহ লাকসাম ও রায়পুর উপজেলার দায়িত্ব নিয়েছিলেন এবং সরাসরি যুদ্ধে নেতৃত্ব দেন। এমন কি শোনা যেতো যে,আব্দুর রব বাহিনী নামে একটি শক্তিশালী সংগঠন আছে। যা শুনতে পেলে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পালিয়ে যেতেন। যুদ্ধের শেষ সময় চাঁদপুর জেলার সাতটি ব্যাংকের চাবি সুবেদার আব্দুর রব সাহেবের কাছে জমা দেন ব্যাংক পরিচালক কর্মকর্তারা। পরে দেশ স্বাধীন হওয়ার পরপরই জাতি শ্রেষ্ঠ সন্তান সুবেদার (অব:) রব সরকারের কাছে চাবি হস্তান্তর করেন। তিনি চাঁদপুর মুক্তিযোদ্ধার সংসদ নির্বাচন করেন এবং প্রতিষ্ঠাতা কমান্ডার ছিলেন। ১৯৭২ থেকে ১৯৭৬ -চার বছর তিনি কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি মৃত্যুর আগ পর্যন্ত মুক্তিযোদ্ধা সংসদের বিভিন্ন দায়িত্ব সৎ নিষ্ঠার সাথে পালন করে গেছেন। আব্দুর রব সাহেব সারা জীবন সততার সাথে জীবন যাপন করেছেন এবং ২০০৮ সালে চাঁদপুর সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। সৃষ্টিকর্তা যেন এই মহান মানুষটিকে পরকালে বেহেস্ত নসীব করেন। আমরা মুক্তিযোদ্ধা সন্তানরা আমাদের পরিবার পক্ষ থেকে আব্দুর রব সাহেবের জন্য দোয়া কামনা করি তিনি যেন পরকাল জান্নাত বাসী হন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2024 Coder Boss
Design & Develop BY Coder Boss